1. admin@dainiktrinamoolsangbad.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:৪৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে, মোদি-হাসিনার শ্রদ্ধা

এইচ এম জুয়েল
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৭ মার্চ, ২০২১
  • ২৫৯ বার পঠিত

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে, মোদি-হাসিনার শ্রদ্ধা

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে হাসিনা-মোদির শ্রদ্ধা
গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

শনিবার (২৭ মার্চ) বেলা ১১টা ৩৯ মিনিটে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান।

এর আগে বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছান নরেন্দ্র মোদি। তাকে অভ্যর্থনা জানান প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একসঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ পরিদর্শন, পুষ্পস্তবক অর্পণ, বৃক্ষচারা রোপণ, দর্শনার্থী বই সাক্ষর করেন।

নরেন্দ্র মোদির আগমন উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়া এলাকায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তাবলয় তৈরি করা হয়েছে।

এর আগে সকাল ১০টার দিকে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে যশোরেশ্বরী মন্দির পরিদর্শন করেন নরেন্দ্র মোদি। সেখানে তিনি ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী পূজা দেন।

এদিকে নরেন্দ্র মোদি টুঙ্গিপাড়া থেকে কাশিয়ানীর  ওড়াকান্দিতে হরিচাঁদ ঠাকুরের বাড়িতে শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের মন্দিরে পূজা-অর্চনা করেন। পরে তিনি মতুয়া প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

এই পবিত্র জায়গায় মাথা ঠেকানোর সৌভাগ্য হয়েছে। ২০১৫ সালে যখন বাংলাদেশে এসেছিলাম, তখন মা ঢাকেশ্বরীর চরণে মাথা ঠেকানোর সৌভাগ্য হয়েছিল। আর আজ মা কালীর আশীর্বাদ নেওয়ার সুযোগ হয়েছে।’

মোদি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে মানবজাতি যে সঙ্কটে রয়েছে মা কালীর কাছে প্রার্থনা করেছি সেই সঙ্কট যেন দ্রুত চলে যায়। সবাই যেন সুখে থাকেন। পুরো মানবজাতির জন্য প্রার্থনা করেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমার যদি সুযোগ থাকে তবে মা কালীর সবগুলো শক্তিপীঠে যাব। আজ আমি এই পবিত্র ভূমিতে এসেছি। আমি শুনেছি, এখানে মা কালীর বড় পূজা অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে সীমান্তের ওপারের ভক্তরাও যোগ দিয়ে থাকেন। তাই এখানে একটি মাল্টি পারপাস হল থাকা দরকার। যেন কালী পূজার সময় সবার উপকারে আসে। আবার অন্য সময় স্থানীয়দের সামাজিক ও ধর্মীয় বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যায়।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সবচেয়ে বড় কথা এই কমিউনিটি হল দুর্যোগ ও আপদকালীন সময়ে ব্যবহার করা যাবে। বিশেষ করে সাইক্লোনের সময়ে শেল্টার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এজন্য ভারত সরকার এখানে একটি কমিউনিটি হল নির্মাণ করবে। আমি এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সাহায্য কামনা করছি।

উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দু’দিনের সফরে আসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২০ দৈনিক তৃণমূল সংবাদ
Theme Customized BY Theme Park BD